• শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৩৯ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
বার্তা বিজ্ঞপ্তি:
দৈনিক বার্তা সময়ে নিয়োগকৃত প্রতিনিধি হওয়ার আপাতত কোন সুযোগ নেই, তবে সকল সংবাদকর্মী আমাদের বার্তামেইলে সংবাদ প্রেরণ করতে পারবেন। আপনদের প্রেরিত বার্তা বাছাইক্রমে প্রকাশ করা হবে এবং প্রেরিত  সংবাদের ভিত্তিতে আপনার প্রতিনিধি  হওয়ার সুযোগ থাকবে-  ধন্যবাদ  -সম্পাদক।  বার্তা প্রেরণের মেইলঃ dainikbartasomoynews@gmail.com

করোনাভাইরাসের কারণে দেশের অর্থনীতিতে একটি বিরাট ধাক্কা এলেও সরকার শিক্ষা খাতে যেসব সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে: প্রধান মন্ত্রী।

দৈনিক বার্তা সময় ডেস্ক: / ১৬০ বার পড়া হয়েছে
প্রকাশ সময় : সোমবার, ১ জুন, ২০২০

লকডা’উনের এই সময়ে সকল শিক্ষা’র্থীকে মনোযোগ দিয়ে পড়াশোনা করার আহ্বা’ন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হা’সিনা বলেছেন, ‘সবাইকে আমি অনুরোধ করব, সকলে যাতে ঘরে বসে একটু পড়া’শোনা করে। তোম’রা লেখাপড়া শিখবে এবং মানুষের মতো মানুষ হবে।

করোনাভাইরাসের কারণে দেশের অর্থনীতিতে একটি বিরাট ধাক্কা এলেও সরকার শিক্ষা খাতে যেসব সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে সেগুলো বন্ধ হবে না। প্রাইমারি থেকে উচ্চ শিক্ষা পর্যন্ত ‘সরকারের দেয়া বৃত্তি এবং উপবৃত্তি সু’বিধা অব্যা’হত থাকবে।’

রোববার (৩১ মে) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এবারের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশকালে এসব কথা বলেন প্রধা’নমন্ত্রী। এ সময় শিক্ষা মন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহি’বুল হাসান চৌধুরী নওফেল নেতৃত্বে বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা গণভ’বনে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বছরের শুরুতে প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক শ্রেণি পর্যন্ত বিনা’মূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ এবং নানা শিক্ষা উপকরণ বিতরণ কর্মসূচিও এ সময় অব্যাহত থাকবে। পরীক্ষার ফলাফলে কেউ হয়তো পাস করেছেন আবার কেউ হয়তো পাস করতে পারেননি।’

যারা পাস করতে পারেননি তাদের মন খারাপ না করে আ’বার লেখাপ’ড়া করে যেসব বিষয়ে অনুত্তীর্ণ হয়েছে, সেসব বিষয়ে উত্তীর্ণ হওয়ার সুযোগ গ্রহণের আহ্বা’ন জানান প্রধানমন্ত্রী। তি’নি কৃতকার্য হওয়া শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবক, শিক্ষক এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষাবোর্ডের কর্মক’র্তাদের অভিনন্দন জানান।

সকলকে নিজেদের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত রাখতে এবং সেক্ষেত্রে সকলকে স্বাস্থ্যবিধিগুলো মেনে চলার আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি লকডাউনের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘সব কিছু দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল। কিন্তু একটা দেশ এভাবে চলতে পারে না। আমি দেখতে পাচ্ছি, অন্য দেশগুলোও তাদের অর্থনৈতিক ক্ষেত্র এবং যাতায়াতসহ নানা বিষয় অল্প অল্প করে উন্মুক্ত করছে। কাজেই আমরাও সেই পদ্ধতিতে যাচ্ছি।’

লকডাউনসহ বিভিন্ন সমসাময়িক পদক্ষেপের কারণেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ এবং এতে মৃ’ত্যু’র হার কিছুটা হলেও বাংলাদেশ নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছে উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘সকলে যদি স্বাস্থ্য’বিধিটা মেনে চলেন তাহ’লে নিজেকে, পরিবারকে, পাড়া প্রতিবেশীকেও আপনারা সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। যাতে এই ভাইরাসটি আর বেশি করে সংক্রমিত করতে না পারে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোভিড-১৯ ভা’ইরাসটি খালি চোখে দেখা না গেলেও এর এমন একটা শক্তি যে, সারা বিশ্বকে নাড়িয়ে দিয়েছে, অর্থনীতির চাকাসহ সব কিছু স্থবির করে দিয়েছে। সেইরকম একটা পরিস্থিতিতে আমাদের চলতে হচ্ছে।’

তিনি চলতি বো’রো মৌসুমে কৃ’ষকদের ধান’কাটায় সহ’যোগিতা করা’য় ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসে’বক লীগসহ আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী’দের সকলকে ধন্যবাদ জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এর ফলে আমা’দের খাদ্যের অভাব হবে না। খাদ্য নিরাপত্তা আমরা নিশ্চিত করতে পারব। আমাদের পার্টির লোক থেকে আইন’শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সশস্ত্র’বাহিনী, স্বাস্থ্য’কর্মী এবং স্থানীয় প্রশাসন প্রত্যে’কেই নিজ নিজ দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছেন। যেটাকে একটি অভূত’পূর্ব ঘটনা বলেই আমি মনে করি।’

শিক্ষকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘শিক্ষক’দেরকে আমি বলব, তাদেরকে সেই শিক্ষাই দেবেন। সেই শিক্ষাটা হচ্ছে শুধু নিজে ভালো থাকা নয়, দেশের কল্যাণে এবং মানুষের কল্যা’ণে কাজ করা। যা জাতির পিতা আমাদেরকে বার বার শিখিয়েছেন। সেই মানুষের কল্যাণেই যেন আজকে’র শিক্ষা’র্থীরা নিবেদিত প্রাণ হয়।

দেশকে ভালবাসা, মানুষকে ভালবাসা এবং মানুষের প্রতি কর্তব্য করার শিক্ষাটাই যেন ছেলে-মেয়েরা গ্রহ’ণ করে। আমার যেটা অধিকার অপ’রের জন্য সেটা কর্তব্য। আবার আমার যেটা কর্তব্য সেটা অপরের জন্য অধিকার-এভাবেই যেন সবাই চিন্তা করে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছেলে-মেয়েরা লেখাপড়া শিখে মানুষের মতো মানুষ হয়ে বাংলা’দেশকে বিশ্ব দরবারে একটি মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করবে, সেটাই আমি চাই। আমি সবসময় এটাই মনে করি, আমাদের ছাত্র-ছাত্রীরা অনেক মেধাবী এবং একটু সুযোগ পেলেই তারা সেই মেধার বিকাশ ঘ’টাতে পারে। যেকোনো সঙ্কটে আত্মবি’শ্বাস রাখতে হবে। নিজের আত্মবিশ্বাসটা হচ্ছে সব থেকে বড়, যেকোনো পরিস্থি’তি আমরা মোকাবিলা করতে পারব। কারণ, আমরা মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ী জাতি।’


এই বিভাগের আরও বার্তা

যোগাযোগ করুনঃ