• মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৫:৫৫ পূর্বাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी
বার্তা বিজ্ঞপ্তি:
দৈনিক বার্তা সময়ে নিয়োগকৃত প্রতিনিধি হওয়ার আপাতত কোন সুযোগ নেই, তবে সকল সংবাদকর্মী আমাদের বার্তামেইলে সংবাদ প্রেরণ করতে পারবেন। আপনদের প্রেরিত বার্তা বাছাইক্রমে প্রকাশ করা হবে এবং প্রেরিত  সংবাদের ভিত্তিতে আপনার প্রতিনিধি  হওয়ার সুযোগ থাকবে-  ধন্যবাদ  -সম্পাদক।  বার্তা প্রেরণের মেইলঃ dainikbartasomoynews@gmail.com

২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনালে,দু’বার টস করতে হয়েছিল!

দৈনিক বার্তা সময় ডেস্ক: / ১৭৬ বার পড়া হয়েছে
প্রকাশ সময় : শুক্রবার, ২৯ মে, ২০২০

২০১১ সালের ২ এপ্রিল। ভারতীয়দের জীবনের রেড লেটার ডে। সেই জমকালো রাতের কথা আজও ক্রিকেটপ্রেমীদের মনে উজ্জ্বল। কারণ সেই দিনই মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে বিশ্বকাপ ঘরে তুলেছিল টিম ইন্ডিয়া। দ্বিতীয়বার বিশ্বজয়ের স্বাদ পেয়েছিল দেশবাসী। বিশ্বকাপ জয় নিশ্চিত হওয়ার পর প্রতিটা মুহূর্তই ক্রিকেটভক্তদের মনে আছে। কিন্তু সেই ম্যাচে টসের সময় ঠিক কী ঘটনা ঘটেছিল, তা হয়তো অনেকেরই স্মৃতিতেই ফিকে। এত বছর পর উলটোদিকের অধিনায়ক কুমার সঙ্গকারা ফাঁস করলেন সেই মজার ঘটনা। জানালেন, সেদিন ধোনির জন্য দু’বার টস করতে হয়েছিল!

লকডাউনের আবহে মাঝেমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় আড্ডা জমাতে দেখা যাচ্ছে খেলার দুনিয়ার তারকাদের। কখনও সুনীল ছেত্রী জমিয়ে গল্প করছেন বিরাট কোহলির সঙ্গে, তো কখনও রোহিত শর্মা ব্যস্ত হরভজন সিংয়ের সঙ্গে। ঠিক তেমনই রবিচন্দ্রন অশ্বিনের সঙ্গে ভিডিও চ্যাটে যুক্ত হয়েছিলেন সঙ্গকারা। আর সেখানেই ওঠে ওয়াংখেড়েতে বিশ্বকাপ ফাইনালের প্রসঙ্গ। তখনই প্রাক্তন লঙ্কা অধিনায়ক জানান, ধোনিই দ্বিতীয়বার টস করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন।

কিন্তু কেন? আসলে ফাইনাল দেখতে গ্যালারিতে সমর্থকদের ভিড় ছিল উপচে পড়ার মতো। তাই টসের সময় কী কল নেওয়া হয়েছিল, তা স্পষ্ট শোনা যায়নি। সঙ্গকারার কথায়, “সেদিন স্টেডিয়াম সমর্থকে ঠাসা ছিল। শ্রীলঙ্কায় কখনও এই পরিমাণ ভিড় দেখিনি। একবার ইডেনে এমনটা হয়েছিল। সমর্থকদের চিৎকারে ফার্স্ট স্লিপের ফিল্ডারের কথাও শুনতে পাচ্ছিলাম না। একই ঘটনা ঘটে ওয়াংখেড়েতে। আমি টসের সময় কী কল করেছিলাম মাহি শুনতে পায়নি। আমায় জিজ্ঞেস করে, তুমি কি টেল বললে? আমি বললাম না, হেড ডেকেছি। রেফারি জানান আমিই জিতেছি। কিন্তু মাহির ধন্দ ছিল। তাই ও বলে, আরেকবার টস হোক।” সত্যিই সেদিন ধোনির ধন্দ দূর করতে দ্বিতীয়বার টস হয় এবং আবার জেতেন সঙ্গকারাই।

প্রাক্তন তারকা বলছেন, “জানি না সেটা সৌভাগ্য ছিল কি না। মাহি জিতলে হয়তো আগে ব্যাট করত।” তবে টস নিয়ে ধন্দ থাকলেও জয় নিয়ে সেদিন হয়তো ধোনির মনে কোনও ধন্দ ছিল না। ফিনিশার হিসেবে তাঁর সেই হেলিকপ্টার শটই যেন ক্যাপ্টেন কুলের আত্মবিশ্বাসের প্রকৃষ্ট প্রমাণ।

তথ্যসূত্র।।।


এই বিভাগের আরও বার্তা

যোগাযোগ করুনঃ